দীক্ষিত ব‍্যাখ‍্যা: তেন দধি ইত‍্যস‍্য হরতি শীতলং ষষ্ঠং সান্দ্রমিত‍্যেতেষু পরেষু যণাদিকং ন

স্বপ্রসঙ্গ দীক্ষিত ব‍্যাখ‍্যা (বৃত্তি ব‍্যাখ‍্যা) তেন দধি ইত‍্যস‍্য হরতি শীতলং ষষ্ঠং সান্দ্রমিত‍্যেতেষু পরেষু যণাদিকং ন।

দীক্ষিত ব‍্যাখ‍্যা (বৃত্তি ব‍্যাখ‍্যা) – তেন দধি ইত‍্যস‍্য হরতি শীতলং ষষ্ঠং সান্দ্রমিত‍্যেতেষু পরেষু যণাদিকং ন


উৎস:– আচার্য ভট্টোজি দীক্ষিত বিরচিত সিদ্ধান্তকৌমুদী গ্রন্থের পূর্বার্ধে আলোচ‍্য দীক্ষিত বৃত্তিটি বিদ‍্যমান।

প্রসঙ্গ:- আচার্য ভট্টোজি দীক্ষিত নাজঝল‍ৌ সূত্রের বৃত্তিতে বলেছেন- তেন দধি ইত‍্যস‍্য হরতি শীতলং ষষ্ঠং সান্দ্রমিত‍্যেতেষু পরেষু যণাদিকং ন।

বৃত্তিটির অর্থ:– দধি পদের ই কারের পর হরতি, শীতলম্, ষষ্ঠম্, সান্দ্রম্ ইত‍্যাদি থাকলে যণাদেশ প্রভৃতি সন্নিকর্ষ হয় না।

দীক্ষিত ব‍্যাখ‍্যা: তেন দধি ইত‍্যস‍্য হরতি শীতলং ষষ্ঠং সান্দ্রমিত‍্যেতেষু পরেষু যণাদিকং ন

অনিষ্ট সন্ধিকার্যের নিবারণ প্রসঙ্গেই সবর্ণসংজ্ঞা নিষেধক নাজঝলৌ সূত্রের অবতারনা, অন‍্যথায় অকার ও হকার, ইকার ও শকার, ঋকার ও ষকার এবং ৯কার ও সকারের পরস্পর সবর্ণসংজ্ঞা হয়ে যেত। তাহলে দধি শব্দের পরে হরতি, ষষ্ঠম্ অথবা সান্দ্রম্ থাকলে সেখানেও যণ্ এবং দধি শীতলম্ উদাহরণে ইকারের পর সবর্ণ অচ্ থাকায় অকঃ সবর্ণে দীর্ঘঃ সূত্রে দীর্ঘ হবার প্রসঙ্গ হয়।


উষ্মবর্ণ শ,ষ,স,হ আদির অচ্ প্রত‍্যাহারে পাঠ নি থাকলেও অনুদিৎ-সূত্র দ্বারা তাদের গ্রহণ সম্ভবপর হয়। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে নাজঝল‍‍ৌ সূত্রে অনুদিৎ -সূত্রের প্রয়োগ সম্ভব নয়। তুল‍্যাস‍্য প্রযত্নম্ সবর্ণম্ সূত্র এবং নাজঝল‍ৌ এই নিষেধসূত্র মিলিত হয়ে সবর্ণসংজ্ঞা সিদ্ধ করবে এবং সবর্ণসংজ্ঞা ব‍্যবহার করে অনুদিৎ সূত্রের অর্থ বোধ হলে অন‍্যান‍্য সূত্রে সবর্ণের গ্রহণ সম্ভব হবে। কিন্তু সবর্ণসংজ্ঞা যতক্ষণ সিদ্ধ না হচ্ছে এবং সবর্ণসংজ্ঞার নিঃসংশয় বোধ না হচ্ছে ততক্ষণ অনুদিৎ -সূত্রের প্রবৃত্তি হতে পারেনা। সুতরাং নাজঝলৌ সূত্রের নিষ্পত্তির সময় অনুদিৎ সূত্র লব্ধাত্মকই নয়, অর্থাৎ তার স্বরূপই সিদ্ধ হয়নি। যেহেতু সূত্রটি সবর্ণপদঘটিত, সবর্ণসংজ্ঞা নিষ্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত তা নিরর্থক। সুতরাং এ থেকে খুবই স্পষ্ট বোধ হয় যে, নাজঝলৌ সূত্রের ক্ষেত্রে অনুদিৎ সূত্রের প্রসক্তি সম্ভব নয়।

Leave a Comment