সিদ্ধান্তকৌমুদী: আদেঙ্ গুণঃ

সিদ্ধান্তকৌমুদী অনুসারে আদেঙ্ গুণঃ সুত্র বাখ্যা ।

সিদ্ধান্তকৌমুদী সুত্র বাখ্যা – আদেঙ্ গুণঃ


উৎস:- আচার্য ভট্টোজি দীক্ষিত সিদ্ধান্তকৌমুদী গ্রন্থের পূর্বার্ধে এই পাণিনীয় সূত্রটির আলোচনা করেছেন।

বৃত্তি:- অদেঙ্ চ গুণসংজ্ঞঃ স‍্যাৎ।

সূত্রার্থ:- অকার, একার এবং ওকারের গুণসংজ্ঞা হয়।

আদেঙ্ গুণঃ -সূত্রব‍্যাখ‍্যা

গুণ বলতে অ, এ  এবং ও এই তিনটি বর্ণের বোধহয়। গুন সংঙ্গার ব্যবহার দেখা যায় আদগুনঃ সূত্রে। আদগুনঃ সূত্রের অর্থ হলো অ বর্ণের পর অচ্  থাকলে উভয়ে মিলে প্রাপ্তি অনুসারে তিনটি বর্ণের মধ্যে কোন একটি বর্ণ হবে। যেমন দেব+ইন্দ্রঃ=দেবেন্দ্রঃ, নীল+উৎপলম্= নীলোৎপলম্ ইত্যাদি।

তপরস্তৎকালস‍্য সূত্রের আলোচনায় আমারা দেখেছি বৃদ্ধিরাদৈচ্ সূত্রে ত-কার আকারের প্রয়োজন সিদ্ধ করেনা। শুধু ঐচ‍্যের প্রয়োজন সিদ্ধ করে। বর্তমান সূত্র কিন্তু তকার সকলেরই অর্থাৎ পূর্বের অকার এবং পরের এঙ্ উভয়েরই প্রয়োজন সিদ্ধ করছে। ফলে শুধু একমাত্রিক অকারের এবং দুইমাত্রিক একার এবং ওকারের গুণসংজ্ঞা হবে। যেমন- দেব+ঈশঃ=দেবেশঃ।
 
     বৃদ্ধিসংজ্ঞার মতো তদ্ভাবিত এবং অতদ্ভাবিত দুই প্রকার বর্ণেরই গুণ সংজ্ঞা হবে।

Leave a Comment