সিদ্ধান্তকৌমুদী: তস্মাদিভ‍্যূত্তরস‍্য

সিদ্ধান্তকৌমুদী: তস্মাদিভ‍্যূত্তরস‍্য

সিদ্ধান্তকৌমুদী – তস্মাদিভ‍্যূত্তরস‍্য


উৎস:- আচার্য ভট্টোজি দীক্ষিত সিদ্ধান্তকৌমুদী গ্রন্থের পূর্বার্ধে এই পাণিনীয় সূত্রটির অবতারনা করেছেন।

বৃত্তি:- পঞ্চমীনির্দেশেন ক্রিয়মাণং কার্য‍্যং। বর্ণান্তরেণাব‍্যবহিতস‍্য পরস‍্য জ্ঞেয়ম্।

সূত্রার্থ:- পঞ্চম‍্যন্ত পদ দিয়ে সূত্রে যাকে বোঝানো হবে, তার অব‍্যবহিত পরে ব‍্যাকরণঘটিত কার্যটি হবে।

তস্মাদিভ‍্যূত্তরস‍্য সূত্রব‍্যাখ‍্যা:-

এই সূত্রে পূর্বসূত্র থেকে নির্দিষ্ট পদের অনুবর্তন করা হয়েছে। তবে এই সূত্রে পদটি পঞ্চম‍্যন্তরূপে বিপরিণত হয়েছে। ফলে পদটি তস্মাৎ এই পঞ্চম‍্যন্ত পদের বিশেষণরূপে ব‍্যবহৃত হয়। সেজন‍্য দীক্ষিত বৃত্তির সম্পূর্ণ অর্থ হয়- পঞ্চ‍ম‍্যন্ত পদের নির্দেশের দ্বারা বিধীয়মান কার্য‍্য বর্ণান্তরের ব‍্যবধানশূণ‍্য পরবর্ত্তীরই হয়ে থাকে। যেমন- ‘তিঙঙতিঙ্ঃ’ সূত্রে ‘অতিঙ’ পদটি পঞ্চম‍্যন্তে। তিঙঙতিঙঃ সূত্র বলে অতিঙন্ত পদের অব‍্যবহিত পরবর্তী তিঙন্ত পদটির সর্বানুদাত্ততা বা নিঘাত হয়। যেমন- অগ্নিম্ ঈলে- এইবাক‍্যে অগ্নিম্ পদটি অতিঙন্ত। এবং এটি ঈলে এই তিঙন্তপদের বর্ণান্তরের ব‍্যবধানশূণ‍্য। অর্থাৎ অগ্নিম্ ও ঈলে – এই দুটির মধ‍্যে কোনো ব‍্যবধান নেই। সুতরাং ঈলে এই তিঙন্ত পদের সর্বানুদাত্ত হয়ে থাকে।

এইরূপ ‘উদঃ স্থাস্তম্ভোঃ পূর্বস‍্য ‘ – সূত্রের উদঃ এই পঞ্চম‍্যন্ত পদের দ্বারা বোধিত যে উৎ – উপসর্গে তার পূববর্তী স্থা ও স্তম্ভের পূর্বসবর্ণ প্রাপ্ত হবে। তা যাতে না হয়- পঞ্চম‍্যন্ত পদের দ্বারা বোধিত কার্য‍্য অব‍্যবহিত পরবর্তীরই হয়। সুতরাং ব‍্যবহিতের এবং পূর্ববর্তীর কার্য‍্য হয়না। ফলে উৎ-সংস্থানম্ ইত‍্যাদি ক্ষেত্রে উৎ-এর পরবর্তী স্থা, সম্ -উপসর্গের দ্বারা ব‍্যবহিত। সেকারনে এখানে উদঃ স্থাস্তম্ভোঃ- সূত্রানুসারে পূর্বসবর্ণ হয়না। ফলে ‘উৎসংস্থানম্’ এরূপ প্রয়োগই ইষ্টপ্রয়োগ বলে গণ‍্য হয়।

Leave a Comment