অপাদান কারক ও পঞ্চমী বিভক্তি

অপাদান কারক ও পঞ্চমী বিভক্তির সুত্রগুলি বিস্তারিত আলোচনা করা হয়ছে ।

অপাদান কারক

যে স্থান হতে কোনো কিছু বিশ্লেষ বোঝালে অপাদান কারক হয় । এই অপদান কারকে পঞ্চমী বিভক্তি হয় ।

ধ্রুবমপায়েঅপাদানম্

সচল ও অচল অর্থে সংযোগে পূর্বক বিশ্লেষ বোঝালে তাতে অপাদান কারক হয়।
উদা:- বৃক্ষাৎ পত্রং পততি।

ধ্রুবমপায়েঅপাদানম্ -এই সূত্রানুসারে নিশ্চল বৃক্ষাৎ পদে অপাদান কারক হয়েছে। এবং অপাদানে পঞ্চমী এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

ভীত্রার্থানাং ভয়হেতু

যাহা হইতে কোনো ভয় বা ত্রান বোঝায় সেই ভয়ের হেতু বা ত্রানের হেতুতে অপাদান কারক হয়।যেমন:- ব‍্যাঘ্রাৎ বিভেতি।

ভীত্রার্থানাং ভয়হেতুঃ – এই সূত্রানুসারে ভয়ার্থক ভি ধাতুর যোগে ব‍্যাঘ্রাৎ পদে অপাদান কারক হয়েছে। এবং অপাদানে পঞ্চমী এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

পরাজেরসোঢ়

পরা-পূর্বক জি ধাতুর যোগে যাহা অসহনীয় বিষয় তাতে অপাদান কারক হয়।
যেমন:- বালকঃ অধ‍্যয়নাৎ পরাজয়তে।
পরাজেরসোঢ়- এই সূত্রানুসারে পরা পূর্বক জি ধাতুর যোগে অধ‍্যয়নাৎ পদে অপাদান কারক হয়েছে এবং অপাদানে পঞ্চমী এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

বারণার্থানামীপ্সিত

অর্থাৎ বারার্থক ধাতুর প্রয়োগে যবেভ‍্যো গাং বারয়তি।
বারণার্থানামীপ্সিত – এই সূত্রানুসারে বারণার্থক ধাতুর প্রয়োগে যবেভ‍্যো পদে অপাদান কারক হয়েছে এবং অপাদানে পঞ্চমী এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

অন্তর্ধৌ যেনাদর্শনমিচ্ছতি

ব‍্যবধান অবস্থায় কেউ দেখতে না পাউক এরূপ ইচ্ছে করে যার অন্তরালে থাকে তাতে অপাদান কারক হয়। যেমন:- মাতুঃ নিলীয়তে কৃষ্ণঃ। ছাত্রঃ উপাধ‍্যায়াৎ অন্তর্ধত্তে।
অন্তর্ধৌ যেনাদর্শনমিচ্ছতি – এই সূত্রানুসারে কৃষ্ণ মাতার দৃষ্টিপথের বাইরে থাকায় মাতুঃ পদে অপাদান কারক হয়েছে এবং অপাদান পঞ্চমী এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

আখ‍্যাতোপযোগে

নিয়ম পূর্বক বিদ‍্যা গ্রহণ বোঝালে যার কাছে থেকে নিয়ম পূর্বক বিদ‍্যা গ্রহণ করা হয় তাতে অপাদান কারক হয়।
যেমন:- শিষ‍্যঃ উপাধ‍্যায়াৎ শাস্ত্রমধীতে।
আখ‍্যাতোপযোগে -এই সূত্রানুসারে উপাধ‍্যায়ের কাছ হইতে শিষ‍্য নিয়ম পূর্বক শিক্ষা গ্রহণ করা হয়েছে এবং অপাদানে পঞ্চমী- এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে। কিন্তু- নটস‍্য গাথাং শৃণোতি। এই বাক‍্যে নটের কাছ থেকে গান শোনা শিক্ষাটি নিয়ম পূর্বক না হওয়ায় আখ‍্যাতোপযোগে না হয়ে নটস‍্য পদে সম্বন্ধে ষষ্ঠী বিভক্তি হয়েছে।

জনিকর্তুঃ প্রকৃতিঃ

জন্ ধাতুর প্রয়োগে বা উৎপন্ন অর্থে এককথায় যা থেকে কোনো কিছু উৎপন্ন হয় তাতে অপাদান কারক হয়।

যেমন:- পুষ্পাৎ ফলং জায়তে।
জনিকর্তুঃ প্রকৃতিঃ এই সূত্রানুসারে জন্ ধাতুর প্রয়োগে পুষ্পাৎ পদে অপাদান কারক হয়েছে। এবং অপাদানে পঞ্চমী এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

ধর্মাৎ সুখমুৎপদ‍্যতে।
জনিকর্তুঃ প্রকৃতিঃ- এই সূত্রানুসারে উৎপন্নবাচক ধর্মাৎ পদে অপাদান কারক হয়েছে এবং অপাদানে পঞ্চমী -এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

ভুবঃ প্রভবঃ

যে প্রকাশিত হয় তার প্রথম প্রকাশ বা আবির্ভাব স্থানে অপাদান কারক হয়।
যেমন- হিমবতো গঙ্গা প্রভবতি।
ভুবঃ প্রভবঃ- এই সূত্রানুসারে হিমালয় গঙ্গার প্রকাশের প্রথম স্থান তাই হিমবতো পদে অপাদান কারক হয়েছে এবং অপাদানে পঞ্চমী – এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

পঞ্চমী বিভক্তি

যে যে স্থানে পঞ্চমী বিভক্তি হয় সেই সুত্রগুলি নিম্নে আলোচনা করা হল।

অপাদানে পঞ্চমী

ধ্রুবমপায়েঅপাদানম্- এই সূত্রানুসারে যে সকল স্থানে অপাদান কারক হয় তাতে পঞ্চমী বিভক্তি হয়। যেমন:- গ্রামাৎ আয়াতি- ধ্রুবমপায়েঅপাদানম্- এই সূত্রানুসারে গ্রামাৎ পদে অপাদানে পঞ্চমী এই সূত্রানুসারে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

ল‍্যব্ লোপে কর্মণ‍্যধিকরণে চ (বা)

ল‍্যব্ প্রত‍্যয়ান্ত পদ উহ‍্য থাকলে কর্মে ও অধিকরণে বিকল্পে পঞ্চমী বিভক্তি হয়। আমরা জানি বাংলায় ইয়া যোগে ক্ত্বাচ্ প্রত‍্যয় হয়। যেমন- গম্+ক্ত্বাচ্ = গত্বা। কিন্তু ধাতুর পূর্বে উপসর্গ থাকলে ক্ত্বাচ্ প্রত‍্যয় না হয়ে ল‍্যপ্ প্রত‍্যয় হয়হ যেমন:- আ-গম্+ল‍্যপ্ = আগম‍্য।
প্র-ণম্+ল‍্যপ্ = প্রণম‍্য/প্রণত্ব।

প্রাসাদাৎ প্রেক্ষতে।
আলোচ‍্য উদাহরনে প্রাসাদম্ আরুহ‍্য হওয়ার কথা। তা না হয়ে সরাসরি প্রাসাদাৎ বলায় আলোচ‍্য উদাহরণে ল‍্যপ্ প্রত‍্যয়ান্ত পদটি উহ‍্য থেকে গেছে। প্রাসাদম্ এটি দ্বিতীয়ান্ত পদ এবং আরুহ‍্য (আ-রুহ্+ল‍্যপ্) – এই পদটি না উল্লেখ করে সরাসরি প্রাসাদাৎ পদ উল্লেখ করায় এখানে ল‍্যব্ লোপে কর্মন‍্যাধিকরণে চ এই এই বার্তিক সূত্রের প্রয়োগ হয়েছে। ল‍্যব্ লোপে কর্মণ‍্যধিকরণে চ- এই বার্তিকসূত্রানুসারে ল‍্যব্ প্রত‍্যয়ান্ত ক্রিয়াপদ উহ‍্য থাকায় প্রাসাদাৎ পদে কর্মে বিকল্পে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

পঞ্চমী বিভক্তে

দুটি ভিন্ন পদার্থের মধ‍্যে যা থেকে কোনো একটি পদার্থের উৎকর্ষ বা অপকর্ষ বিবক্ষিত হয় তাতে অপেক্ষার্থে পঞ্চমী বিভক্তি হয়।
উদা:- পিতুর্গরীয়সী মাতা ( পিতা অপেক্ষা গরীয়সী মা), ন চ দৈবাৎ পরং বলম্, স হি কাকাৎ কৃষ্ণঃ।

  • পঞ্চমী বিভক্তে – এই সূত্রানুসারে পিতুঃ পদে অপেক্ষার্থে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

করণে চ স্তোকাল্প – কৃচ্ছ – কতিপয়স‍্যা – সত্ত্ব -বচনস‍্য:-

বিশেষ‍্য রূপে প্রযুক্ত স্তোক, অল্প, কৃচ্ছ ও কতিপয় শব্দের উত্তর করণ কারকে বিকল্পে তৃতীয়া ও পঞ্চমী বিভক্তি হয়।
যেমন:- স্তোকেন স্তোকাৎ বা মুক্তঃ। অল্পেন অল্পাৎ বা রক্ষিতঃ।
‘করণে চ স্তোকাল্প- কৃচ্ছ-কতিপয়স‍্যা-সত্ত্ব-বচনস‍্য’ – এই সূত্রানুসারে ‘স্তোক’ এই বিশেষ‍্য শব্দের প্রয়োগে স্তোকাৎ পদে করণ কারকে বিকল্পে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

বিভাষা গুণেঅস্ত্রিয়াম্

শব্দের উত্তর বিকল্পে তৃতীয়া ও পঞ্চমী বিভক্তি হয়।
যেমন:- হর্ষাৎ হর্ষেণ বা নৃত‍্যতি।
বীর্যেণ বীর্যাৎ বা খ‍্যাতঃ।
বিভাষা গুনেঅস্ত্রিয়াম্- এই সূত্রানুসারে হেতু অর্থে স্ত্রীলিঙ্গ ভিন্ন গুনবাচক হর্ষাৎ পদে বিকল্পে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

পঞ্চম‍্যপাঙ্-পরিভিঃ

অপ্, আঙ্, পরি- এই তিনটি কর্ম প্রবচনীয় যোগে পঞ্চমী বিভক্তি হয়।

কর্মপ্রবচনীয়:- আমরা জানি ধাতুর উত্তর উপসর্গ বসে তার অর্থকে প্রকাশ করে কিন্তু অনেক স্থলে উপসর্গ স্বাধীন বা স্বতন্ত্র ভাবে বসে নিজের অর্থকে প্রকাশ করে তখন তাকে কর্মপ্রবচনীয় বলে।
যেমন:- অপ হরেঃ সংসারঃ। পরি হরেঃ সংসারঃ। আ মরণাৎ শিবং পূজয়। আ মুক্তেঃ সংসারঃ।
পঞ্চম‍্যপাঙ্ -পরিভিঃ – এই সূত্রানুসারে অপ্ এই কর্মপ্রবচনীয় যোগে হরেঃ পদে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

প্রতিনিধি- প্রতিদানে চ যস্মাৎ

যার প্রতিনিধি ও প্রতিদান বোঝায় তাতে প্রতি এই কর্ম প্রবচনীয় যোগে পঞ্চমী বিভক্তি হয়।
যেমন:- প্রদ‍্যুস্নঃ কৃষ্ণাৎ প্রতি(প্রতিনিধি অর্থে)
প্রতিনিধি – প্রতিদানে চ যস্মাৎ- এই সূত্রানুসারে প্রতিনিধিবাচক কর্মপ্রবচনীয় যোগে কৃষ্ণাৎ পদে পঞ্চমী বিভক্তি হয়েছে।

কারক বিভক্তির অন্যান্য পোস্টগুলি

Leave a Comment