ভারতীয় দর্শন: সমাধি

ভারতীয় দর্শন হতে সমাধি সম্পর্কে টিকা

ভারতীয় দর্শন – সমাধি (টিকা)

সমাধি:- যোগ দর্শনে চিত্তবৃত্তি নিরোধের উপায় হিসাবে যে অষ্টবিধ উপায়ের উল্লেখ করেছেন তার মধ্যে অন্যতম হলো সমাধি। ধ‍্যানের পরিনাম হলো সমাধি। সমাধিতে যোগীর জগৎ সম্পর্কে, নিজ সম্পর্কে,এমনকি তার ধ‍্যান সম্পর্কেও কোন জ্ঞান থাকেনা। ধারণা অবচ্ছিন্ন হলে ধ্যান হয় এবং ধ‍্যান গভীর হলে সমাধি হয়।  সমাধির অবস্থায় ধ‍্যেয় বস্তুমাত্রই প্রকাশিত হয়। যখন ধ‍্যানের বস্তুর আকৃতি ও বাহ‍্যরূপ পরিত্যক্ত হয় এবং কেবল অর্থ মাত্র প্রকাশিত হয়, তখন তাকে সমাধি বলে। চিত্র তখন ধ‍্যেয় বস্তুতে নীল হয়, ধ‍্যেয় স্বরূপই প্রাপ্ত হয়।

     মহর্ষি পতঞ্জলির মতে চিত্তবৃত্তির নিরোধই সমাধি বা যোগ। যোগ বা সমাধি দুই প্রকার। যথা সম্প্রজ্ঞাত ও অসম্প্রজ্ঞাত। অভ্যাস ও বৈরাগ্য দ্বারা চিত্তবৃত্তি গুলি নিরুদ্ধ হলে প্রথমে সম্প্রজ্ঞাত সমাধি হয়। মহর্ষি পতঞ্জলি ও ব্যাসদেব সম্প্রজ্ঞাত সমাধিকে চারভাগে ভাগ করেছেন – সবিতর্ক, সবিচার, সানন্দ ও সাস্মিত।

          অসম্প্রজ্ঞাত সমাধিতে সংস্কার বীজ সম্পূর্ণ বিনষ্ট হয়। ফলে যোগী ক্লেশাদি হতে চিরমুক্তি লাভ করেন। অসম্প্রজ্ঞাত সমাধি দুই প্রকার। যথা-  ভব প্রত্যয় এবং উপায় প্রত্যয়।  এইজন্যই যোগ দর্শনে অসম্প্রজ্ঞাত সমাধির আবশ্যকতা স্বীকৃত হয়েছে।
  
      পরিশেষে বিজ্ঞানভিক্ষু বলেছেন -কৈবল‍্যের হেতু যে  চিত্তবৃত্তি নিরোধ তাই যোগ।  কৈবল‍্যের হেতু হয় বলে সম্প্রজ্ঞাত ও অসম্প্রজ্ঞাত উভয়েই যোগ বা সমাধি বলে কথিত হয়।

Leave a Comment