মনুসংহিতা অনুসারে ব্যসন ও মৃত্যুর মধ্যে কোনটি ক্ষতিকর

sanskrit Hons and Pass – এর একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ টপিক মনুসংহিতা (অনুসারে ব্যসন ও মৃত্যুর মধ্যে কোনটি ক্ষতিকর )হতে বিভিন্ন চাকরির ( WBSSC , SLST WBCSSC , NET , TET SET ) পরীক্ষার প্রস্তুতিমূলক LONG SHORT MCQ NOTES তৈরি করা হয়েছে ।

ব্যসন ও মৃত‍্যুর মধ‍্যে কোনটি অধিক ক্ষতিকর এবং কেন মনুসংহিতা অনুসারে লিখ ? 

ব‍্যসনের মূল কারন


উঃ- কামজ ও ক্রোধজ -উভয় প্রকার ব‍্যসনের মূল কারন হল লোভ। সমস্ত ব্যসনেই যত্নের সঙ্গে বর্জন করা উচিত-

“ব‍্যসনানি দূরন্তানি প্রযত্নেন বিবর্জয়েৎ’।

ব্যসন ও মৃত‍্যুর মধ‍্যে কোনটি অধিক ক্ষতিকর এবং কেন

ব‍্যসন ও মৃত্যু দুইই মানুষের পক্ষে ভয়ঙ্কর ও ক্ষতিকর।কারণ এই দুটি কোনটিতেই কোন প্রকার মঙ্গলের সঙ্কেত নেই।তথাপি ব‍্যসনকে মৃত্যু অপেক্ষাও কষ্টকর বলা হয়েছে-

” ব‍্যসনস‍্য চ মৃত্যোশ্চ ব‍্যসনং কষ্টমুচ‍্যতে”।

কারণ ব‍্যসনাসক্ত মানুষ প্রতিনিয়ত সৎ বুদ্ধি হারিয়ে নানাপ্রকার অপকর্ম করে থাকে আর তার ফলে সে ক্রমাগত অধোগতি লাভ করে। ব‍্যসনাসক্ত ব্যক্তির অধর্মাচরনের জন্য যেমন ইহলোকে নিন্দিত হন ও কষ্ট ভোগ করেন।

ঠিক তেমনি পরলোকেও নরক যন্ত্রণা ভোগ করেন। ব‍্যসন ইহলোকেই নয় পরলোকেও কষ্টদায়ক।

অন্যদিকে ব‍্যসনহীন মানুষ মৃত্যুর পর সৎ অনুষ্ঠানের জন্য স্বর্গে আগমন করেন -” স্বর্যাত‍্যব‍্যসনীমৃতঃ’। সেক্ষেত্রে মৃত্যু সাময়িক হলেও মৃত্যুর পরেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির সমস্ত প্রকার দুঃখের অবসান ঘটে।


সুতরাং মৃত্যু ও ব‍্যসনের এই পরিণতি থেকে সহজেই অবধারণ করা যায় যে মৃত্যু অপেক্ষা ব‍্যসন অধিক কষ্টদায়ক এবং প্রতিটি মানুষেরই ব‍্যসনাসক্তি পরিত‍্যাগ করা উচিত।অন্যান্য উত্তর গুলি জাতে নিচে ক্লিক করুন

মনুসংহিতা সপ্তম অধ্যায় রাজধর্ম হতে অন্যান্য পোস্ট গুলি

Leave a Comment