শ্রীগঙ্গাস্তোত্রম্: নামকরণ কতখানি সার্থক তা বিচার করো

শ্রীগঙ্গাস্তোত্রম্: নামকরণ কতখানি সার্থক তা বিচার করো

শ্রীগঙ্গাস্তোত্রম্: নামকরণ কতখানি সার্থক তা বিচার করো

উত্তর : সাহিত্যের ক্ষেত্রে নামকরণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। সাহিত্যে নামকরণ নানা প্রকারে হতে পারে।

যেমন –

  • বিষয়ভিত্তিক,
  • চরিত্রপ্রধান,
  • ব্যঞ্ছনাধর্মী

শ্রীগঙ্গাস্তোত্রম্ নামকরণটি বিষয়কেন্দ্রিক হয়েছে।

শংকরাচার্য দশটি স্তোত্রে গঙ্গার স্তুতি করেছেন। গঙ্গা হিন্দু জনজীবনে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। পবিত্রতা গঙ্গার অশুচিতা, তাঁর ধর্ম, শক্তিতে যে সর্বদা ভরপুর সেই অমৃত প্রদায়িনী ভারতের একাত্মতা ও অখন্ডতার অনুপম প্রতীক। প্রতি শ্লোকে গঙ্গা স্তুতি পঙ্খটিকা ছন্দে রচিত বলে নামকরণ সার্থক হয়েছে।

শ্রীগঙ্গাস্তোত্রম্ নামকরণ

  • গঙ্গাদেবী বা গঙ্গাজলের মাহাত্ম্য কীর্তন হল শ্রীগঙ্গাস্তোত্রম্ । গঙ্গা ভারতে অবস্থিত পবিত্র নদী বিশেষ বা বৈদিক নদী। শংকরাচার্য দশটি স্তোত্রে গঙ্গার স্তুতি করেছেন।
  • ভগীরথ সগর সন্তানদের উদ্ধারের জন্য কঠোর তপস্যা করে একে পৃথিবীতে আনেন। মহাভারতে শান্তনুর পত্নীরূপে ইনি বশিষ্ঠের অভিশাপে অষ্টবসুর জননীরূপে খ্যাতা।
  • জনমে মরণে জীবনধারণে গঙ্গা হিন্দু জনজীবনে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। পবিত্রতা গঙ্গার অঙ্গ, শুচিতা তাঁর ধর্ম, সঞ্জীবনী শক্তিতে যে সর্বদা ভরপুর সেই অমৃত প্রদায়িনী গঙ্গা ভারতের একাত্মতা ও অখণ্ডতার অনুপম ।

মূল্যায়ন :

গঙ্গা মহিমাকে জনমানসে জ্ঞানে, ভক্তিতে, শরণাগতিতে আরও মহিমময় করে তুলেছেন শিবাবতার শ্রীশংকরাচার্য খ্রিস্টীয় অষ্টম শতকে। গঙ্গাস্তোত্রে তিনি বলেছেন –

“তব ভটনিকটে যস্য নিবাসঃ মৃদু বৈকুণ্ঠে তস্য নিবাসঃ।”

গঙ্গা মহিমা তিনি প্রত্যক্ষ করেছিলেন আপন ঐশী প্রজ্ঞার আধারে। তাই সবদিক দিয়ে “শ্রীগঙ্গাস্তোত্রম্” নামকরণ সার্থক হয়েছে।


অন্য অর্থে:

গো-এর অর্থ পৃথিবী। গো+ দ্বিতীয়ার একবচনে-গাম্ (পৃথিবীকে)। গম্+ড কর্তৃবাচ্যে+ স্ট্রীলিঙ্গে গঙ্গা। গমনার্থে গম্ ‘ধাতু’ অর্থাৎ পৃথিবীতে যিনি আগমন করেছেন। গঙ্গার উৎপত্তি গোমুখী শৃঙ্খ থেকে। এই গঙ্গা কলুষবিনাশিনী। কলিযুগে গঙ্গাই সর্বশ্রেষ্ঠ তীর্থ। গঙ্গার জল সদা পবিত্র। (করণবাচ্যে)। ক্লীবলিঙ্গের প্রথমার একবচন। “ভূ’-এর অর্থ হল স্তব। ‘এ’ অর্থাৎ গান করে স্তুতি, প্রশংসা, গুণকীর্তন

অন্য অর্থে: গো-এর অর্থ পৃথিবী। গো+ দ্বিতীয়ার একবচনে গাম্ (পৃথিবীকে)। গম্ + ড কর্তৃবাচ্যে । গমনার্থে গম্ ধাতু অর্থাৎ পৃথিবীতে যিনি আগমন করেছেন। গঙ্গার উৎপত্তি গোমুখী থেকে। এই কলি- । কলিযুগে গঙ্গাই সর্বশ্রেষ্ঠ তীর্থ। গঙ্গার জল সদা পবিত্র। + (কণবাচ্যে)। ক্লীবলিঙ্গের প্রথমার একবচন। ‘ভূ’-এর অর্থ হল স্তব। ‘এ’ অর্থাৎ গান করে স্তুতি, প্রশংসা, গুণকীর্তন

Leave a Comment