ভারতীয় আর্যভাষা সম্পর্কে আলোচনা কর | উচ্চ মাধ্যমিক সংস্কৃত ভাষাতত্ত্ব

উচ্চ মাধ্যমিক সংস্কৃত ভাষাতত্ত্ব ভারতীয় আর্যভাষা সম্পর্কে আলোচনা কর । ভারতীয় আর্যভাষা কাকে বলে ? প্রতিস্তরের আলোচনা কর?

ভারতীয় আর্যভাষা সম্পর্কে আলোচনা করা । ভারতীয় আর্যভাষা কাকে বলে ? প্রতিস্তরের আলোচনা কর? স্তরগুলির আনুমানিক রচনা কাল উল্লেখ কর? উচ্চ মাধ্যমিক সংস্কৃত ভাষাতত্ত্ব -২০১৫।

উত্তর: ভারতীয় আর্যভাষা সম্পর্কে আলোচনা :

ইন্দো-ইরানীয় ভাষার একটি অনুমিত ভাষা। পঃ পূ ২৫০০ অব্দে এই ভাষার উদ্ভব। তবে খ্রীঃ পুঃ ২৫০০ অব্দে এই ভাষা ভারতবষে প্রবেশ করে। ইন্দো-ইরানীয় ভাষা হতে বিচ্ছিন্ন হয়ে ভারতষে প্রবেশ করার জন্য এই ভাষার নাম হয় ভারতীয় আর্যভাষা।

ভারতীয় আর্যভাষার স্তরবিন্যাস-

ভারতীয় আর্যভাষার বিকাশের ধারাকে তিনটি স্তরে কথা হয়। এই বিভাজন হয়েছে কাল অনুসারে।

তিনটি স্তর হােল

  • ১) প্রাচীন ভারতীয় আর্যভাষা ( ১৫০০ খ্রীঃ পূঃ ৬০০ খ্রীঃ পূঃ)
  • ২) মধ্য ভারতীয় আর্যভাষা (৬০০ খ্রীঃ পূঃ ৯০০ খ্রীঃ )
  • ৩) নব্য ভারতীয় আর্যভাষা (৯০০ খ্রীঃ পূঃ বর্তমান)

১) প্রাচীন ভারতীয় আর্যভাষা :

এই স্তরের প্রাচীনতম বৈদিক সাহিত্য পরিপুষ্ট। তাই এই যুগকে বৈদিক ভাষার যুগ বলা হয়। এর শেষ ভাগ হল সংস্কৃত ভাষার যুগ। এই সময়ে সংস্কৃত সাহিত্য মূল উৎকর্ষতা লাভ করেছে। এই স্তরের সময় কাল হল-১৫০০ খ্রীঃ পুঃ হতে ৬০০ খ্রীঃ পূঃ ।

২) মধ্য ভারতীয় আর্যভাষা :-

অশােরে শিলালিপিতে ভাষার প্রাচীনতম নিদর্শন পাওয়া যায়। ৬০০ খ্রীঃ পূঃ থেকে ৯০০খ্রীঃ পর্যন্ত এই ভাষার প্রচলন ছিল। এই স্তরে পালি,প্রাকৃত, অপভ্রংশ ভাষাতে সাহিত্য রচিত হয়েছে। এই স্তরকে প্রাকৃত ভাষার যুগ বলে ।

৩) নব্য ভারতীয় আর্যভাষা:

বর্তমানে প্রচলিত ভারতবর্ষের প্রাদেশিক ভাষা গুলি এই ভাষার মধ্যে পড়ে। ৯০০ খ্রীঃ হতে বিবর্তন আজও অব্যাহত। বাংলা হল এই স্তরের গুরুত্বপূর্ণ ভাষা। তবে এই স্তরের ভাষা গুলির মূল উৎস সংস্কৃত ও পালি।

আরো পড়ুন উচ্চ মাধ্যমিক সংস্কৃত ভাষাতত্ত্ব

Leave a Comment