Arthashastra Sanskrit Hons Pass Notes | অর্থশাস্ত্র টীকা ত্রয়ী স্থানম্

Arthashastra Sanskrit Hons Pass Notes | অর্থশাস্ত্র টীকা – ত্রয়ী , স্থানম্


১. ত্রয়ী


ঋক, সাম ও যজু এই তিনটি বেদের একত্রিত নাম হল ত্রয়ী। অথর্ব বেদের পুরান, ইতিহাস প্রভৃতি এর অঙ্গীভ‚ত।

এমনকি ছয়টি বেদাঙ্গ কেও ত্রয়ীর অন্তর্ভূক্ত করা হয়।

আর্য ধর্মের সমস্ত বিধি বিধান ও জ্ঞাতব্য তথ্য ত্রয়ী বিদ্যায় রয়েছে বলে এটি শুধুমাত্র ধর্মগ্রন্থ নয়। সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ক গ্রন্থও বটে।

আর্য সমাজের শান্তি শৃঙ্খলা বর্নাশ্রম ধর্মের উপর নির্ভরশীল ছিল। ত্রয়ী বিদ্যাতে চতুর্বর্ন ও চর্তুাশ্রম সংক্রান্ত সমস্ত নিয়ম কানুনের পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরন রয়েছে।

ত্রয়ীর বিধান সমাজের পক্ষে পরম মঙ্গল জনক। ত্রয়ী প্রতিটি মানুষকে স্বধর্মে ও নিজ কর্ত্তব্য পালনে অগ্রসর হওয়ার উপদেশ দেয়।

Arthashastra Sanskrit Hons Pass Notes | অর্থশাস্ত্র টীকা – ত্রয়ী , স্থানম্

২. স্থানম্


‘তিষ্টতে অনেন ইতি স্থানম্’। দন্ত, কোষ, পুর ওরাষ্ট্রভেদে এই স্থান চার প্রকার। ‘দন্ডতে অনেন ইতি দন্ডঃ’।

হস্তি, অশ্ব, রথ, পদাতিক এই চতুরঙ্গ সেনার রক্ষনাবেক্ষনকে দন্ড বলে। তার আয় ব্যয় সম্পর্কে চিন্তাকে বলে কোষ।

রাজপুরের রক্ষনকে পুর বোঝায়। আর রাষ্ট্র হচ্ছে দেশ। সেই দেশেরগ বসবাস কারী মনুষ্য পুশু প্রভৃতি রক্ষা করাকে বলে রাষ্ট্র চিন্তা।

অর্থশাস্ত্র

“মনুষ্যাণাং বৃত্তিরর্থঃ ,তস্যাঃ পৃথিব্যাঃ লাভপালনোপায়ঃ অর্থশাস্ত্রম্ ইতি ।” – কৌটিল্য ।

গ্রন্থকার পরিচিতি –

রচয়িতা – কৌটিল্য ।

অপর নাম – বিষ্ণুগুপ্ত ,চাণক্য ।

জন্মস্থান – তক্ষশিলা ।

পিতা – চণক ঋষি ।

জাতি – ব্রাহ্মণ ।

গোত্র – কুটল ।

সময়কাল – খ্রীঃ পূঃ চতুর্থ শতক ।মৌর্য সম্রাট চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের মহামন্ত্রী ছিলেন ।

গ্রন্থ পরিচিতি -রচনাকাল – আনুমানিক খ্রীঃ পূঃ চতুর্থ শতক ।

বিষয় – রাজনীতি । ধর্মশাস্ত্র ,নীতিশাস্ত্র ,শিক্ষাশাস্ত্র ,সমাজশাস্ত্র ,কৃষিবিজ্ঞান ,চিকিত্সাশাস্ত্র ,তন্ত্রশাস্ত্র প্রভৃতি বিষয়ও আলোচিত হয়েছে ।

ভাষা – সংস্কৃত ।

গ্রন্থ বিন্যাস

অধিকরণ =১৫

অধ্যায় = ১৫০

প্রকরণ = ১৮০

শ্লোকসংখ্যা = ৬০০০

প্রসিদ্ধ টীকা – শ্রীমূলা ! রচয়িতা – মহামহোপাধ্যায় গণপতি শাস্ত্রী ।

কৌটিল্য মতানুসারে -ত্রিবর্গ – ধর্ম ,অর্থ ,কাম।

ত্রয়ী – ঋক্ ,সাম ,যজুঃ ।

“সামৃগ্যজুর্বেদাস্ত্রয়ত্রয়ী “।

আণ্বীক্ষিকী – সাংখ্যশাস্ত্র ,যোগশাস্ত্র ,লোকায়ত শাস্ত্র । “সাংখ্যং যোগো লোকায়তং চেত্ আণ্বীক্ষিকী”।

বার্তা – কৃষি ,পশুপালন ,বাণিজ্য । “কৃষিপশুপালো বাণিজ্যা চ বার্তা “।

দণ্ডনীতি – আণ্বীক্ষিকী ,ত্রয়ী ,বার্তা তিন বিদ্যার যোগ ও ক্ষেম সাধন হল দণ্ড।

“আণ্বীক্ষিকী – ত্রয়ী – বার্তানাং যোগক্ষেমসাধনো দণ্ডঃ” ।

ইন্দ্রিয়জয় – বিদ্যাজনিত বিনয় এবং আত্মসংযমের হেতু। “বিদ্যাবিনয়হেতুরিন্দ্রিয়জয়ঃ “।

ষড়রিপু – কাম ,ক্রোধ ,লোভ ,মোহ, মদ ও মাৎসর্য।

ষাড়গুণ্য – সন্ধি ,বিগ্রহ ,যান ,আসন ,সংশ্রয় ,দ্বৈধীভাব ।

সপ্তাঙ্গ / সপ্তপ্রকৃতি – রাজা ,অমাত্য ,রাষ্ট্র ,দুর্গ ,কোশ ,দণ্ড ,মিত্র ।

চতুর্বর্ণের কর্তব্য-

১ ব্রাহ্মণ – অধ্যয়ন ,অধ্যাপনা ,স্বহিতার্থে ও পরহিতার্থে যজ্ঞ সম্পাদন ,দান ও প্রতিগ্রহ । “অধ্যয়নম্ অধ্যাপনং যজনং যাজনম্ দানং প্রতিগ্রহশ্চেতি”।

২.ক্ষত্রিয় – অধ্যয়ন ,যজন ,দান ,অস্ত্রবিদ্যার সাহায্যে জীবিকা অর্জন ও প্রাণীবর্গের রক্ষণ। “অধ্যয়নং যজনং দানং শস্ত্রাজীবো ভূতরক্ষণং চ ।

৩.বৈশ্য – নিজের মঙ্গলের জন্য যজ্ঞানুষ্ঠান ,দান এবং কৃষি ,পশুপালন ও বাণিজ্য ।” যজনং দানং কৃষিপশুপাল্যে বাণিজ্যা চ “।

৪.শূদ্র – ব্রাহ্মণাদি তিন বর্ণের সেবা ,কৃষি ,পশুপালন ,বাণিজ্য ,শিল্পকর্ম ও কুশীলব কর্ম । “দ্বিজাতিশুশ্রূষা বার্তা কারুকুশীলব কর্ম চ “।

কৌটিল্য মতে প্রকারভেদ –

পারুষ্য – ১.বাকপারুষ্য ২.দণ্ডপারুষ্য ।

দূত – ১.নিসৃষ্টার্থ ,২.পরিমিতার্থ ৩.শাসনহর।

বিদ্যা -১. আণ্বীক্ষিকী ২.ত্রয়ী ৩.বার্তা ৪.দণ্ডনীতি ।

উপায় – ১.সাম ২.দান ৩.দণ্ড ৪.ভেদ ।

দুর্গ – ১.ঔদক ২.পার্বত ৩.ধান্বন ৪.বন ।

ব্যূহ – ১.সম ২.বিষম ৩.মিশ্র ৪.দণ্ড।

অমাত্য পরীক্ষার উপায়- ১. ধর্মোপধা ২.অর্থোপধা ৩.কামোপধা ৪.ভয়োপধা ।

মন্ত্র- ১.কার্যারম্ভ করার উপায় ,২.পুরুষ সম্পৎ ৩. দেশকালবিভাগ ৪.বিনিপাত প্রকার ৫.কার্যসিদ্ধি।

কর – ১.রাজকর ২.দুর্গকর ৩.রাষ্ট্রকর ৪.খনিকর ৫.সেতুকর ৬.বনকর ৭.ব্রজকর ৮.বণিক্পথ কর ।

বিবাহ – ১.ব্রাহ্ম ২.প্রাজাপত্য ৩.আর্য ৪.দৈব ৫.গান্ধর্ব ৬.আসুর ৭.রাক্ষস ৮.পৈশাচ ।

গূঢ়পুরুষ -১.কাপটিক ২.উদাস্থিত ৩.গৃহপতিক ৪.বৈদেহক ৫.তাপস ৬.সত্রী ৭.তীক্ষ্ম ৮.রসদ ৯.ভিক্ষু।

পদ কাকে বলে? পদ কয় প্রকার ও কী কী?

Leave a Comment