স্বপ্নবাসবদত্তম্: ছোট প্রশ্ন ও উত্তর

স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটক হতে ছোট প্রশ্ন ও উত্তরগুলি নিম্নে দেওয়া হল ।

স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটক হতে ছোট প্রশ্ন ও উত্তর

১) স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের উৎস কি?
উক্ত নাটকটিতে উপস্থাপিত বিদূষকের  নাম কি?

উ:- অনেকের মতে স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের উৎস গুনাঢ‍্য রচিত বৃহৎকথা হলেও সমালোচকদের মতে তা ঠিক নয়। তাঁরা প্রচলিত লোককাহিনীকেই স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের  উৎস বলেছেন।
   উক্ত নাটকটিতে উপস্থাপিত বিদূষকের নাম বসন্তক।

২) স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের রচয়িতা কে? তাঁর রচিত অন‍্যান‍্য রচনাগুলি কি কি?

উ:- স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের রচয়িতা হলেন মহাকবি ভাস।
মহাকবি ভাস রচিত অন‍্যান‍্য রচনাগুলি হল-

i) প্রতিজ্ঞা যৌগন্ধরায়ণ, ii) প্রতিমা নাটক, iii) অভিষেক, iv) পঞ্চরাত্রম্, v) কর্ণভারম্, vi) দূতঘটোৎকচম্, vii) ঊরুভঙ্গ, viii) দূতবাক‍্যম্, ix) মধ‍্যমব‍্যায়োগ, x) বালচরিতম্, xi) অবিমারকম্ ও xii) চারুদত্তম্।

৩) চক্রারপংক্তিরিবগচ্ছতি ভাগ‍্যপংক্তিঃ’ – কে বলেছেন? কাকে বলেছেন?
উ:- মহাকবি ভাস রচিত স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের প্রথম অঙ্কে উক্ত কথাটি বৎসরাজ উদয়নের বিচক্ষণ মন্ত্রী যৌগন্ধরায়ণ বলেছেন।
     যৌগন্ধরায়ণ উক্তিটি অবন্তিকা বেশধারিনী রাজমহিষী বাসবদত্তাকে বলেছেন।

৪) ভাসের দুটি একাঙ্ক নাটকের নাম উল্লেখ কর?
উ:- মহাকবি ভাসের দুটি একাঙ্ক নাটক হল- মধ‍্যমব‍্যায়োগ, দূতবাক‍্যম্।

৫)’ তস‍্যাম্ মে মহতী স্বতা ‘ – বক্তা কে? ‘তস‍্যাম্’ শব্দ দ্বারা কাকে বোঝান হয়েছে? বক্তার এরূপ অনুভূতির কারণ কি?
উ:- উক্ত উক্তিটির বক্তা বৎসরাজ উদয়নের বিচক্ষণ মন্ত্রী যৌগন্ধরায়ণ।
      তস‍্যাং পদের দ্বারা মগধ রাজকুমারী পদ্মাবতীকে বোঝানো হয়েছে।
       বক্তার এরূপ অনুভবের কারণ হলো -পুষ্পকভদ্রক প্রভৃতি দৈবজ্ঞগণের ভবিষ‍্যদ্বানী অনুসারে পদ্মাবতী উদয়নের পত্নী হবেন এবং যৌগন্ধরায়ণেরও এরূপই ইচ্ছা।

৬) ভাস সমস‍্যা বলতে কি বোঝ?
উ:- মহামহোপাধ‍্যায় টি.গনপতি শাস্ত্রী দাক্ষিণাত‍্যের কেরল প্রদেশে ‘মালয়ালম্’ লিপিতে রচিত ২ খানি তালপাতার পুঁথিতে লিখিত মোট ১৩ খানি নাটককে মহাকবি ভাস রচিত নাটকচক্র বলে সিদ্ধান্ত করেছেন (১৯০৯-১৯১১)।কিছু প্রাচ‍্য ও পাশ্চাত‍্য পণ্ডিত  (keith, tomas, weber) শাস্ত্রীজির সিদ্ধান্ত মেনে নিলেও Banet, janson প্রমুখ পণ্ডিতগন উক্ত নাটকগুলিকে ভাসের রচনা বলে মানতে রাজী নন। উভয় পক্ষেরই জোরালো যুক্তিতর্ক থাকায় প্রকৃত সিদ্ধান্ত স্থির না হওয়ায় বিষয়টিকে ভাস সমস‍্যা বলা হয়।

৭) রাজা উদয়নের দুজন মন্ত্রীর নাম লেখ।
উ:-রাজা উদয়নের দুজন মন্ত্রীর নাম যৌগন্ধরায়ণ ও রুমন্বান্।

৮) উদয়ন কে ছিলেন? উদয়নের বীনার নাম কি?
উ:- উদয়ন ছিলেন বৎসরাজ‍্যের সুদর্শন। সঙ্গীতপ্রিয় ও হস্তবিদ‍্যা বিশারদ রাজা।
     উদয়নের বীনার নাম – ঘোষবতী। এটি বাসবদত্তারও খুব প্রিয় ছিল।

৯) বাসবদত্তার জন‍্য শোকের সময় রুমন্বান্ উদয়নকে কিভাবে সেবা করেছিলেন?
উ:- রুমন্বান্ ছিলেন বৎসরাজ উদয়নের অমাত‍্য ও সেনাপতি। এই রুমন্বান্ নামক অমাত‍্য বাসবদত্তার শোকে উন্মাদ প্রায় রাজা উদয়ন আহার করলে আহার করেন, অতিশয় রোদনের ফলে রাজার মুখ শুকিয়ে গেলে তিনিও অনুরূপ দুঃখ অনুভব করেন, রাজার দুঃখে দুঃখিত হয়ে তিনি সর্বপ্রকার প্রসাধনাদি বর্জন করেছেন। দিবারাত্র তিনি রাজার এমন সেবাযত্ন করছেন যে রাজা যদি হঠাৎ প্রাণত‍্যাগ করেন তাঁরও মৃত‍্যু হবে।

১০) ভাসের রামায়ণমূলক নাটকগুলি নাম লেখো।
উ:- ভাসের রামায়ণমূলক নাটকগুলি হল- প্রতিমানাটক ও অভিষেক নাটক।

১১) ভাসের সমবকার জাতীয় নাটক কোনটি? এটি কয় অঙ্ক বিশিষ্ট?
উ:- মহাকবি ভাসের সমবকার জাতীয় নাটক হল- পঞ্চরাত্রম্।
     এটি তিন অঙ্ক বিশিষ্ট নাটক।

১২) ভাসের ব‍্যায়োগ শ্রেনীর নাটক কোনটি? এটি কয় অঙ্ক বিশিষ্ট?
উ:- ভাসের ব‍্যায়োগ শ্রেনীর নাটক মধ‍্যমব‍্যায়োগ।
  এটি একাঙ্ক নাটক।

১৩) ভাসের বিয়োগান্তক নাটকটির নাম কি?
এই নাটকের উৎস কি?
উ:- ভাসের একমাত্র বিয়োগান্তকনাটক -ঊরুভঙ্গ।
   এই নাটকটির উৎস হল মহাভারত।

১৪) দুঃখংন‍্যাসস‍্য রক্ষণম্- উক্তিটির বক্তা কে? এখানে ন‍্যাস বলতে কাকে বোঝান হয়েছে? বক্তা ন‍্যাসগ্রহণকে দুঃখদায়ক কেন বলেছেন?
উ:- উক্তিটির বক্তা মগধরাজের পণ্ডিত ও প্রধান অধ‍্যক্ষ কাঞ্চুকীয়।
     এখানে ন‍্যাস বলতে অবন্তিকা বেশধারিনী উদয়নের রাজমহিষী বাসবদত্তাকে বোঝান হয়েছে।
    ধন, প্রাণ ও সুখ সহজেই দান করা যায়। অন‍্যান‍্য সকল বিষয়ই সুখে ত‍্যাগ করা সম্ভব হয়।
     কিন্তু গচ্ছিত বস্তু বা ন‍্যাসের রক্ষণাবেক্ষণ অত‍্যন্ত কষ্টকর কর্ম। কেননা ন‍্যাস বলতে কিছুদিনের জন‍্য পরকীয় দ্রব‍্যের রক্ষণাবেক্ষণ করে নির্দিষ্ট সময়ের অন্তে তাকে যথাযথভাবে দ্রব‍্যস্বামীর কাছে ফেরৎ দিতে হয়। যে দ্রব‍্যটি স্বকীয় নয়, তার রক্ষণাবেক্ষণ ক্লেশ জন্মায় ও সুখ দেয় না।

১৫) ব্রহ্মচারী কে? তিনি কোথা থেকে এসেছিলেন?
উ:- ব্রহ্মচারী বৎসরাজ‍্যের লাবাণক গ্রামে বিদ‍্যাধ‍্যয়নরত এক ছাত্র।
   লাবাণক গ্রামে অগ্নিদাহে রাজমহিষী বাসবদত্তা ও মন্ত্রী যৌগন্ধরায়ণের মৃত‍্যুতে শোকগ্রস্থ রাজাকে অন‍্যত্র সরিয়ে নেওয়ার ফলে তাঁর বিদ‍্যাচর্চায় বাধা পড়ে। তাই তিনি গ্রাম ছেড়ে মগধরাজ‍্যের উপকন্ঠে তপোবনে এসেছিলেন।

১৬) পদ্মাবতী সম্পর্কে ভবিষ‍্যদ্বক্তারা কি মন্তব‍্য করেছিলেন?
উ:- পুষ্পক, ভদ্রক প্রভৃতি ভবিষ‍্যদ্বক্তারা এরূপ মন্তব‍্য করে ছিলেন যে- পদ্মাবতী বৎসরাজ উদয়নের মহিষী হবেন।

১৭) পঞ্চেষুর্মদনো যদা কথময়ং ষষ্ঠ শরঃ পতিতঃ- কে, কখন এই উক্তিটি করেছেন? মদনের পঞ্চবাণের নামগুলি লিখ?
উ:- বৎসরাজ উদয়ন মগধরাজকুমারী পদ্মাবতীকে বিবাহ করার পর এই উক্তি করেছেন।
   মদনের পঞ্চবানগুলির নাম হল- i) অরবিন্দ, ii) অশোক, iii) চুত অর্থাৎ আম্রমঞ্জরী, iv) নবমল্লিকা, v) নীলপদ্ম।

১৮) মহাসেন ও অঙ্গারবতী কে?
উ:- উজ্জয়িনীর  প্রবল পরাক্রমী রাজা প্রদ‍্যোতকে মহাসেনও বলা হতো। তিনি বিশাল সৈন্যবাহিনীর অধিপতি ছিলেন বলে মহাসেন নামে অভিহিত হয়েছিলেন। তিনি বাসদত্তার পিতাও ছিলেন।
      উজ্জয়িনী রাজ প্রদ‍্যোত মহাসেনের  প্রধানা রাজমহিষী ও বাসবদত্তার জননী ছিলেন অঙ্গারবতী।

১৯) জননী বসুন্ধরা কে? তিনি কোথা থেকে কোথায় এবং কেন এসেছিলেন?
উ:- জননী বসুন্ধরা বাসবদত্তার ধাত্রীমাতা।
            উজ্জয়িনী থেকে মহারানী অঙ্গারবতী কর্ত্তৃক প্রেরিতা হয়ে বৎসরাজ‍্যে উদয়নের কাছে এসেছিলেন, উদয়ন ও বাসবদত্তার বিবাহের একটি চিত্রফলক উদয়নকে দেওয়ার জন‍্য।

২০) পদ্মাবতীর দুজন মহিলা চেটীর নাম কি?
উ:- পদ্মাবতীর দুজন মহিলা চেটীর নাম  পদ্মিনিকা ও মধুকরিকা।

২১) পদ্মাবতী কে ছিলেন? বাসবদত্তার সঙ্গে তার কি সম্পর্ক ছিল?
উ:- পদ্মাবতী ছিলেন মগধরাজ দর্শকের ভগিনী এবং বৎসরাজ উদয়নের দ্বিতীয়মহিষী।
       বাসবদত্তার সঙ্গে তাঁর ব্রাহ্মণের প্রোষিতভর্ত্তৃকা ভগিনীরূপ সখীত্বের সম্পর্ক ছিল। বাসবদত্তার প্রকৃত পরিচয় জানার পর উদয়নের প্রথমা মহিষী হওয়ায় বাসবদত্তার সঙ্গে তাঁর সপত্নী বা সতীনের সম্পর্ক হয়।

২২ ) স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের ভরতবাক‍্যটি কি?
উ:- স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের ভরতবাক‍্যটি হল-
“ইমাং সাগরপর্যন্তাং হিমবদ্বিন্দ্ধ‍্যকুন্ডলম্।
মহীমেকাতপত্রাঙ্কাং রাজসিংহঃ প্রশাস্তু নঃ।।”

২৩) নিঃসন্দিগ্ধমিদং তপোবনম্ – এখানে বক্তা কে? তিনি কি কারণে স্থানটিকে তপোবন বলেছেন?
উ:- আলোচ‍্য অংশটির বক্তা হলেন ব্রহ্মচারী।
     তিনি স্থানটিকে তপোবন বলে ধরে নিয়েছিলেন। কারণ সেখানে হরিণেরা নির্ভয়ে বিচরন করছিল, বৃক্ষ সমূহ সযত্নে রক্ষিত হয়ে ফুলে ও ফলে সমৃদ্ধ ছিল। চারিদিকে কপিলধেনু বিচরণ করছিল। বহুস্থান থেকে ঋষিদের হোমাগ্নির ধোঁয়া দেখা গিয়েছিল এবং সর্বত্র স্থানটিতে অকর্ষিত ক্ষেত্র দেখা গিয়েছিল।

২৪) সম্ভষক কে ছিলেন?
উ:- উদয়ন ও বাসবদত্তার কাহিনী অবলম্বনে রচিত মহাকবি ভাসের স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকে মগধরাজ দর্শকের ভগিনী পদ্মাবতীর দেহরক্ষকরূপে আগত দুই সৈনিক পুরুষের মধ‍্যে একজন হলেন সম্ভষক।

২৫) রাজা উদয়নের অনুপস্থিততে লাবাণক গ্রামের অবস্থা বর্ণনা কর।
উ:- বাসবদত্তার শোকে মুহ‍্যমান রাজাকে অমাত‍্য রুমন্বান্ অন‍্যত্র সরিয়ে নেওয়ায় লাবাণক গ্রামটি যেন চন্দনক্ষত্রবর্জিত রাত্রিকালীন শ্রীহীন আকাশের রূপ ধারণ করেছিলেন-
” ততো নিষ্কান্তে রাজনি প্রেষিতনক্ষত্র চন্দ্রমিব নভোঅরমণীয়ঃ সংবৃত্তঃ স গ্রামঃ।”

২৬) ‘ভর্ত্তৃস্নেহাৎ সা দগ্ধাপ‍্যদগ্ধা- সা পদের দ্বারা কাকে বোঝান হয়েছে? উক্তিটির তাৎপর্য ব‍্যাখ‍্যা কর।
উ:- এখানে সা পদের দ্বারা রাজমহিষী বাসবদত্তার অগ্নিদাহে মৃত‍্যুর সংবাদ শুনে শোকাভিভূত হয়ে মূর্চ্ছিত হন। বাসবদত্তার জন‍্য তাঁর করুন বিলাপ এতই মর্মস্পর্শী ও নিদারুন ছিল যে ব্রহ্মচারী বললেন -যে স্ত্রীর জন‍্য স্বামী এরূপ কাতর হন সেই স্ত্রী অবশ‍্যই বন্দনীয়া ও ধন‍্যা। সুতরাং বাসবদত্তা অগ্নিদগ্ধা হয়েও আদগ্ধা অর্থাৎ জীবিতাই যেন আছেন।

২৭) ‘পূর্বংত্বয়াপ‍্যভিমতং…..পুনর্বিজয়েন ভর্ত্তুঃ’ – এখানে ত্বয়া এবং ভর্ত্তু বলতে কাকে বোঝানো হয়েছে?
উ:- স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের প্রথমাঙ্কের উদ্ধৃত পঙক্তিটিতে ‘ত্বয়া’ পদের দ্বারা নাটকের নায়িকা তথা অবন্তিকা বেশধারিনী রাজমহিষী বাসবদত্তাকে এবং ‘ভর্ত্তুঃ’ পদের দ্বারা নায়ক বৎসরাজ উদয়নকে বোঝানো হয়েছে।

২৮) ‘রাজদারিকেতি শ্রুত্বা ভগিনিকাস্নেহোঅপি মেহত্র সং পদ‍্যতে’ – রাজদারিকা এবং মে বলতে কাকে বোঝানো হয়েছে?
উ:- মহাকবিভাসের অন‍্যতম কীর্তি ষষ্ঠাঙ্ক সমন্বিত স্বপ্নবাসবদত্তম্ নাটকের প্রথমাঙ্ক থেকে উদ্ধৃত পঙক্তিটিতে রাজদারিকা বলতে মগধ রাজকুমারী পদ্মাবতীকে এবং মে পদের দ্বারা অবন্তিকা বেশধারী বাসবদত্তাকে বোঝানো হয়েছে।

২৯) ঘোষবতী নামক বীনাটি কে, কাকে দান করেছিল?
উ:- ব‍্যাধের হাত থেকে বসুনেমিকে রক্ষা করায় বসুনেমি সন্তুষ্ট হয়ে বীনাটি রাজা উদয়নকে দান করেছিল। বীনা শিক্ষা দেওয়ার সময় উদয়ন বীনাটি বাসবদত্তাকে উপহার দেন।

Leave a Comment