বাসন্তিকস্বপ্নম্ নাট্যাংশ অবলম্বনে রাজা ইন্দ্রবর্মার চরিত্র আলোচনা কর

উচ্চ মাধ্যমিক সংস্কৃতের অতি গুরুত্বপূর্ণ টপিক দ্বাদশ শ্রেণী সংস্কৃত বাসন্তিকস্বপ্নম্ নাট্যাংশ অবলম্বনে রাজা ইন্দ্রবর্মার চরিত্র আলোচনা কর? উচ্চ মাধ্যমিক সংস্কৃত পরীক্ষায় বাসন্তিকস্বপ্নম্ নাট্যাংশের গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন রাজা ইন্দ্র বর্মার চরিত্র বিশ্লেষণ করো

বাসন্তিকস্বপ্নম্ নাট্যাংশ অবলম্বনে রাজা ইন্দ্রবর্মার চরিত্র আলোচনা কর?

নিম্নে রাজা ইন্দ্র বর্মা চরিত্র বিশ্লেষণ করা হলো ।


রাজা ইন্দ্রবর্মার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য

নাট্যকার আর কৃষ্ণ্মাচার্য্য বিরচিত বাসন্তিকস্বপ্নম্ নাট্যাংশের অন্যতম প্রধান চরিত্র হলেন বৈবস্বত নগরের রাজা ইন্দ্রবর্মা। তাঁর কথোপকথনের মধ্য দিয়ে নিম্নলিখিত চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যগুলি খুঁজে পাওয়া যায়।


আদর্শপ্রেমিক

কনকলেখার সাথে বিবাহের চারদিক বাকি থকলেও তাঁর মন অত্যন্ত উৎকন্ঠিত ও ধৈর্য্যহীন হয়ে পড়েছে

কেবলমাত্র কনকলেখাকে কাছে পাওয়ার জন্য। তাঁর কাছে এক মুহুর্ত একটি যুগের ন্যায় মনে হচ্ছে

‘‘নাড়িকাহপি যুগায়তে।’’


উৎসবপ্রিয়তা

রাজা ইন্দ্রবর্মা তাঁর বিবাহ মনোৎসবের আনন্দ রাজার সকল প্রজাগনের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য প্রমোদকে নির্দেশ দিয়েছেন

‘‘দুঃখং বিদ্রাবর বৈবস্বতনগরমাবর্জয় সর্বতঃ প্রমোদম্।’’

এ থেকে রাজার উৎসবপ্রিয়তার গুণটি প্রকাশিত হয়েছে।


নারীমর্যাদার প্রতীক

নারী মর্যাদায় রাজা অত্যন্ত সচেতন। তাই বিবাহের ব্যাপারে কনকলেখার সঙ্গে আলোচনা করেন এবং বলেন

‘‘অদৃশমপ্রশস্তমার্গমুজ্ঝিত্বা মহোৎসব প্রমোদপ্রসাধনপূর্বং ধাং পরিণেষ্যে।’’

এছাড়াও কৌমুদীর সাথে গুরুত্বসহকারে আলোচনা করেন।


প্রজানুরঞ্জক

রাজা অন্যান্য কাজে ব্যস্ত থাকলেও বৃদ্ধ প্রজা ইন্দুশর্মার প্রার্থনা বা অভিযোগ মন দিয়ে শুনেছেন এবং তার অভিযোগের মীমাংসা তথা সমস্যার সমাধানে সচেষ্ট হয়েছেন অর্থাৎ আদর্শ রাজার দায়িত্ব পালন করেছেন।


বিনয়ী

রাজা অত্যন্ত বিনয়ী ও সমাচার সম্পন্ন ছিলেন। তাই ইন্দুশর্মাকে সাধারণ প্রজা বলে উপেক্ষা করেননি।বরং তার প্রতি নমস্কার জানিয়েছেন

‘‘নমো ভবত ইন্দুশর্মম্।’’


বিচক্ষণতা

রাজা ইন্দ্রবর্মা ছিলেন অত্যন্ত বিচক্ষণ। তিনি ইন্দুশর্মাকে দেখে বুঝতে পেরেছিলেন যে সে কোপ ও শোকে আবিষ্ট। তাই তিনি ইন্দুশর্মাকে জিঞ্জাসা করেছেন

‘‘কথং কার্যাতুর ইব দৃশ্যতে?’’

এছাড়াও কৌমুদীর যুক্তি বিচক্ষণতার সাথে খÐন করে তার কর্তব্য স্বরণ করিয়েছেন।


সমব্যথী

রাজা নিজে প্রেমিক হওয়ার কারণে কৌমুদীর প্রতি সমব্যথী হয়ে বালিকা সম্বোধন করে ভালোভাবে বোঝানোর চেষ্টা করেন এবং সুবিচারকের মতো কৌমুদীকে তার সিদ্ধান্ত পুনঃবিবেচনা করার জন্য কয়েকদিন সময় দেন।


দক্ষশাসক

রাজা নিজে প্রেমিক হয়েও দেশাচার রক্ষার স্বার্থে অপর এক প্রেমিকা কৌমুদীকে ন্যায় পথে চলার নির্দেশ দিয়েছেন ও কঠোর শাস্তির ঘোষণা করেছেন-

‘‘সম্যগালোচ্য তাতমেবানুসর নোচেদ্ভজ মরণম্।’’

উচ্চ মাধ্যমিক সংস্কৃত-বাসন্তিকস্বপ্নম্ নাট্যাংশের অন্যান্য পোস্ট গুলি –

Leave a Comment