অকর্মক ধাতু কখন সকর্মক ধাতু হয়?

অকর্মক ধাতু কখন সকর্মক ধাতু হয়?এই প্রশ্নের উত্তর জানার আগে আমাদের জানতে হবে অকর্মক ধাতু সকর্মক ধাতু সম্পর্কে ।

নিম্নে অকর্মক ধাতু বা ক্রিয়া ও সকর্মক ধাতু বা ক্রিয়া সম্পর্কে আলোচনা করা হল ।

অকর্মক ধাতু সকর্মক ধাতু

ধাতু দুই ধরণের – i ) সকর্মক আর ii ) অকর্মক।

যদি বলি  ‘আমি খাই’ তাহলে সাধারণ একটা প্রশ্ন আসে আমি কি খাই? আমি যদি শুধুমাত্র বলি যে আমি পড়ি তাহলে সাধারণ একটা প্রশ্ন আসে যে আমি কি পড়ি? 

যে ক্রিয়ায় কর্মের আকাঙ্ক্ষা থাকে তাকে সকর্মক ক্রিয়া বলা হয়।

এবং যে ক্রিয়ায় কর্মের আকাঙ্ক্ষা থাকে না সেগুলি হল অকর্মক ক্রিয়া

আমি ঘুমাচ্ছি বললে কেউই জিজ্ঞাসা করে না যে আপনি কী ঘুমাচ্ছেন? 

ধাতুই হল ক্রিয়া – ধাতুশব্দঃ ক্রিয়াবচনঃ।  সুতরাং পঠ্ বা খাদ্ ধাতু হল সকর্মক ধাতু এবং শী ধাতু হল অকর্মক ধাতু।

ক্রিয়াপদ দুই প্রকার। যথা –

  • a) সকর্মক,
  • b) অকর্মক।

ধাতুর ক্ষেত্রে যে দুটি বিষয় হল – ফল ও ব্যাপার। ধাতু ফল ও ব্যাপারবিশিষ্ট হয়। বলা হয় – ফলব্যাপারয়োর্ধাতুঃ। ব্যাপার হল মূল ও অবান্তর সবরকম ক্রিয়া। যেমন পচ্ ধাতুর অর্থ হল রান্না করা। গ্যাস জালানো থেকে শুরু করে হাঁড়ি নামানো পর্যন্ত ক্রিয়াগুলি হল ব্যাপার। সুতরাং পচ্ ধাতুর ফল হল সেদ্ধ হওয়া আর ব্যাপার হল গ্যাস জালানো, হাড়ি চাপানো ইত্যাদি। 

সকর্মক ও অকর্মক ধাতু নির্ণয়ের পদ্ধতিটি অত্যন্ত সহজ। যে ধাতুর ফল ও ব্যাপারের আশ্রয় ভিন্ন ভিন্ন সেই ধাতু সকর্মক ধাতু। যে ধাতুর ফল ও ব্যাপারের আশ্রয় ভিন্ন নয় সেটি হল অকর্মক ধাতু।

এরপর নিয়মটি আমরা বিস্তারে আলোচনা করব –

সকর্মক ধাতু –

রামঃ অন্নং পচতি। এখানে পচ্ ধাতুর ফল হল সেদ্ধ হওয়া। সেদ্ধ হওয়ার আশ্রয় কি? অর্থাত্ কে সেদ্ধ হচ্ছে। দেখা গেল অন্ন সেদ্ধ হচ্ছে; রাম বা হাঁড়ি সেদ্ধ হচ্ছে না। অন্ন এই বাক্যে কর্ম। সুতরাং পচ্ ধাতুর ফলের (সেদ্ধ হওয়ার) আশ্রয় হল কর্ম (অন্ন)। ক্রিয়ার আশ্রয় সবসময় কর্তাই হয়ে থাকে। তাই গ্যাস জালানো ইত্যাদি অবান্তর বা গৌণ ক্রিয়ার অর্থাত্ ব্যাপারের আশ্রয় হল কর্তা রাম। সুতরাং, এখানে ফলের আশ্রয় হল কর্ম আর ব্যাপারের আশ্রয় হল কর্তা। যেহেতু, পচ্ ধাতুর ফল ও ব্যাপারের আশ্রয় ভিন্ন ভিন্ন তাই পচ্ ধাতু হল সকর্মক ধাতু। এরকম খাদ্, পঠ্, গম্, ক্ষিপ্ ইত্যাদি স্থলেও বুঝতে হবে।

অকর্মক ধাতু –

রামঃ শেতে। এখানে শয়ন অর্থাত্ নিদ্রা যাওয়ার ফল হল আনন্দ বা শ্রম দূরীকরণ। শয়নের অবান্তর ব্যাপারগুলি হল অর্থাত্ গৌণ ক্রিয়াগুলি হল – বিছানা প্রস্তুত করা, শরীরকে বিছানার সঙ্গে সমান্তরাল ভাবে স্থাপন করা, চোখ বন্ধ করা ইত্যাদি। এখানে শয়নক্রিয়ার ফল আনন্দ রামের ই হয়, অর্থাত্ আনন্দের আশ্রয় এখানে রাম।  শয়নক্রিয়া এবং অন্যান্য অবান্তর ক্রিয়াগুলির আশ্রয় হল রাম, কারণ কর্তাই সর্বদা ক্রিয়ার আশ্রয় হয়।  সুতরাং, শয়নক্রিয়ার ফল এবং ব্যাপারের আশ্রয় হল রাম। শয়নক্রিয়ার ফল ও ব্যাপারের আশ্রয় অভিন্ন হওয়ায় অর্থাত্ আলাদা না হওয়ায় শয়নক্রিয়া হল অকর্মক ক্রিয়া বা শী ধাতু হল অকর্মক ধাতু।

তবুও একটা সাধারণ মঞ্চ গড়ে তোলা দরকার যেখানে অকর্মক ধাতুগুলি আরও সহজেই চিহ্নিত হবে। অকর্মকগুলি জানা হয়ে গেলে সেগুলো বাদ দিয়ে সকর্মকধাতুগুলির নির্ণয়ের পথও প্রশস্ত হবে।

অকর্মক ধাতু নির্ণায়ক শ্নোকটি হল-

লজ্জা-সত্তা-স্থিতি-জাগরণং বৃদ্ধি-ক্ষয়-ভয়-জীবিত-মরণম্।

নর্তন-নিদ্রা-রোদন-বাসাঃ স্পর্ধা-কম্পন-মোদন-হাসাঃ।

শয়ন-ক্রীড়া-রুচি-দীপ্ত্যর্থাঃ ধাতব এতে কর্মণি নোক্তাঃ।।

লজ্জা, সত্তা অর্থাত্ থাকা, স্থিতি অর্থাত্ গতিনিবৃত্তি, জাগরণ অর্থাত্ জেগে থাকা, বৃদ্ধি অর্থাত্ বেড়ে যাওয়া, ক্ষয়, জীবিত থাকা, মারা যাওয়া, নাচ করা, ঘুমানো, কাঁদা, বাস করা, স্পর্ধা করা, কাঁপা, আনন্দ করা, হাসা, শোওয়া বা ঘুমানো, খেলা, রুচি হওয়া এবং দীপ্ত বা প্রকাশিত হওয়া – এই অর্থে ব্যবহৃত ধাতুসমূহ অকর্মক হয়। এগুলি ছাড়া অন্যান্য ধাতুগুলি হল সকর্মক ধাতু।

লজ্জা – লজ্জ্সত্তা – অস্, ভূস্থিতি – স্থাজাগরণ – জাগৃবৃদ্ধি – বৃধ্, এধ্ক্ষয় – ক্ষি
ভয় – ভীজীবন – জীব্মরণ – মৃনর্তন – নৃত্নিদ্রা – নিদ্র্রোদন – ক্রন্দ্, রুদ্
বাস করা – বস্স্পর্ধা – স্পর্ধ্কম্পন  – কম্প্, বেপ্মোদন – মুদ্, নন্দ্হাসা – হস্শয়ন – শী
ক্রীড়া – খেল্, ক্রীড্রুচি – রুচ্দীপ্তি – ভা, প্র-কাশ্ ইত্যাদি।

একই অর্থে অনেক ধাতু থাকতে পারে। যেমন যাওয়া অর্থে গম্, অয়্, ঋ, ইণ্, যা ইত্যাদি অনেক ধাতু আছে। 

অকর্মক ধাতু কখন সকর্মক ধাতু হয়

বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে অকর্মক ক্রিয়া সকর্মক ক্রিয়াতে পরিণত হয়।

i) অকর্মক ধাতু যোগে –

দেশ বাচক, কালবাচক, পরিণামবাচক, পথপরিমাণ বাচক শব্দে সকর্মক ক্রিয়া হয়।
উদা:-

  • দেশবাচক – কুরুন স্বপিতি,
  • কালবাচক- মাসম্ আস্তে।
  • পথবাচক – ক্রোশম্ আস্তে।
  • ভাববাচক- গোদোহম্ আস্তে।

ii) কখনো কখনো অকর্মক ধাতুর সাথে উপসর্গ যোগ করলে সকর্মক হয়। অধিপূর্বক √শী, √আস্, √স্থা ধাতু গুলি সকর্মক হয়ে যায়।
উদাহরণ:-

সাধুঃ বনম্ অধিসেতে।

iii) এছাড়া অভি-নী- √বিশ্ ধাতু এবং উপ/অনু/অধি√বস্ ধাতু সকর্মক হয়।
উদাহরণ:-

সাধুঃ বনম্ উপবসতি।

Leave a Comment