বাসন্তিকস্বপ্নম্ : নাড়িকাপি যুগায়তে – তাৎপর্য বাখ্যা

বাসন্তিকস্বপ্নম্’ নাটকের প্রারম্ভে রাজা ইন্দ্রবর্মা বলেছেন নাড়িকাপি যুগায়তে । এ কথার তাৎপর্য বাখ্যা এবং ইন্দ্রবর্মা ও কনকলেখার সংলাপ বর্ণনা করে কনকলেখা রাজাকে যেভাবে সান্ত্বনা দিয়েছেন তাও বর্ণনা করো।

বাসন্তিকস্বপ্নম্ নাটক হতে নাড়িকাপি যুগায়তে তাৎপর্য বাখ্যা কর

শ্রীকৃষ্ণমাচার্য রচিত বাসন্তিকস্বপ্নম্ নাটকটি প্রখ্যাত ইংরেজ নাট্যকার শেক্সপিয়রের এ মিড সামার নাইটস ড্রিম A Midsummer Night’s Dream নাটকের সংস্কৃত অনুবাদ। এই অনুবাদের প্রথম অঙ্কের কিছু নির্বাচিত অংশ পাঠ্যাংশরূপে দেওয়া হয়েছে।

এ সংস্কৃত নাটকটিতে ভারতীয় রীতিতে প্রস্তাবনার পর রাজা ইন্দ্রবর্মা ও কনকলেয়ার কথোপকথনের দৃশ্য উপস্থাপিত।

পাঠ্যাংশে আমরা দেখি অবন্তীরাজ ইন্দ্রবর্মা কনকলেখার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার সংকল্প করেন। তাদের বিয়ের দিন ঠিক হয়েছে আগামী অমাবস্যার রাত্রিতে। দিনটি আসতে আর দেরি নেই। মাত্র চার দিন বাকি। কিন্তু এই চার দিন যেন রাজার আর কিছুতেই কাটছে না। কামদেবের আক্রমণে আক্রান্ত রাজার মন চঞ্চল হয়ে উঠেছে। সে শুভলগ্নের জন্য প্রতীক্ষারত রাজা ক্রমশ ধৈর্যহীন হয়ে পড়ছেন। রাজার মনে হচ্ছে কৃষ্ণপক্ষের চাঁদটা যেন খুব নিষ্ঠুর। সে ক্ষয়ছে বটে, কিন্তু রাজার মনে হচ্ছে যেন খুব ধীরে ধীরে ক্ষয়ছে। আর তাই রাজা এত কষ্ট পাচ্ছেন। রাজা অধৈর্য হয়ে পড়েছেন।

রাজা বলেছেন নাড়িকাপি যুগায়তে – তাঁর কাছে এক নাড়িকা সময় যেন এক যুগ বলে মনে হচ্ছে। নাড়িকা মানে অর্ধ মুহূর্ত সময়কালকে বোঝায়। রাজা এতটাই অধৈর্য যে এক মুহূর্ত নয় এক নাড়িকাকেই যুগ বলে মনে করছেন।

নাড়িকাপি যুগায়তে

নাড়িকা : নাড়িকা’ শব্দের অর্থ একদণ্ড বা এক নিমেষ। “নিমেষ’ কথার অর্থ হল ‘পলক’। মানুষের চাখের পাতা একবার পড়াকে ‘পলক’ বলে। অতএব এইভাবে অষ্টাদশ পলক = ১ কাষ্ঠা, ৩০ কাষ্ঠা = ১ কাল, ৩০ কাল = ১ মুহূর্ত, ৩০ মুহূর্ত =১ দিন। আর এই মুহূর্ত হল ‘দণ্ড’ শব্দের অর্থ। সুতরাং, “দণ্ড’ নিমেষ’ এক নয়। এক মুহূর্তে ২ দণ্ড সময়। একদণ্ড সমান ২৪ মিনিট। তাই অন্যভাবে বলা যায় দ্বাদশ নাড়িকা সমান ২৪ ঘণ্টা, তিন নাড়ি অর্থাৎ ৬ ঘণ্টা এবং ৪ নাড়ি সমান ২ ঘণ্টা। কিন্তু নাড়িকা বলতে শাস্ত্রকাররা ২ ঘণ্টাকেই নির্ণয় করেছেন।

অন্য মতে

আধ মুহূর্তকে নাড়িকা বলা হয়। ৩০ মুহূর্তে হয় ১ দিন-রাত। তাহলে, হিসেব করে ৪৮ মিনিটে হয় ১ মুহূর্ত। সুতরাং নাড়িকা হল ২৪ মিনিট পরিমিত সময়। তবে এই মান ধরলে ‘নাড়িকাঽপি যুগায়তে’ বাক্যটির ভাব বাধাগ্রস্ত হয় বলে মনে হয়। তাই এখানে সাধারণভাবে ক্ষণ বলে ধরা যেতে পারে। তাহলে মানে হবে, এক ক্ষণ সময়ও আমার কাছে এক যুগ বলে মনে হচ্ছে।

উপসংহার

উপসংহারে বলা যায় যে, ইন্দ্রবর্মা ও কনকলেখার এই সংলাপে পরস্পরের প্রতি গভীর প্রণয় ও পরস্পর মিলনের ব্যাকুলতা প্রকাশ পেয়েছে ।

Leave a Comment