মেঘদূত পাঠ্যাংশ অনুসারে যক্ষ কর্তৃক প্রেরিত মেঘের বর্ণনা

উচ্চ মাধ্যমিক একাদশ শ্রেণীর পাঠ্যাংশ মেঘদুত পাঠ্যাংশ অনুসারে যক্ষ কর্তৃক প্রেরিত মেঘের বর্ণনা করা হল ।

মেঘদুত পাঠ্যাংশ অনুসারে যক্ষ কর্তৃক প্রেরিত মেঘের বর্ণনা দাও

ভূমিকা

মহাকবি কালিদাস রচিত শ্রেষ্ঠ গীতিকাব্য মেঘদূতের পূর্বমেঘ হতে প্রথম দশটি শ্লোক আমাদের পাঠ‍্যাংশে গৃহীত হয়েছে। সেখানে দেখতে পাই বিরোহী যক্ষ মেঘকে দূত হিসাবে প্রার্থনা জানাচ্ছে

যক্ষের পরিচয়ঃ-

ধনপতি কুবেরের কর্তব্য অবহেলার জন্য অভিসিক্ত এক যক্ষ রামগিরি পর্বতের আশ্রমে দিন অতিবাহিত করছিলেন।

যক্ষের প্রার্থনার কারণঃ-

যক্ষবিরোহীর প্রিয়া তার কাছে থাকে না।আষাঢ় মাসের প্রথম দিবসে আকাশে মেঘের সঞ্চার হতে যক্ষ আর নিজেকে ধরে রাখতে না পেরে অচেতন মেঘকে দূত হিসাবে কুরচি ফুল দিয়ে স্বাগত জানিয়েছেন।

মেঘের বর্ণনাঃ-

মহাকবি কালিদাস যক্ষের মাধ্যমে মেঘের বর্ণনা তুলে ধরেছেন। এই মেঘ ধূম-জ‍্যোতি-জল ও বায়ুর মিশ্রণে সৃষ্ট এবং তাপিত প্রাণীদের একমাত্র আশ্রয় মেঘ,ইন্দ্রের প্রধান পুরুষ। যক্ষের বর্ণনায় মেঘ ভুবনবিখ্যাত পুষ্কর ও আবর্তক বংশে জন্মগ্রহণ করেছেন। তাছাড়া যক্ষের ইচ্ছা অনুযায়ী মেঘকে যেতে হবে সুদূর অলকায়। তখন বায়ু মেঘকে বহন করে নিয়ে যাবে। চাতক পাখি তার বাম মধুর সুরে কূজন করবে। সুন্দর সাদা বকের সারি মেঘের সাথে সাথে সেবা করতে করতে চলবে।

উপসংহারঃ-

মহাকবি কালিদাস বিরোহী যক্ষের মাধ্যমে মেঘকে দূত হিসাবে পাঠকসমাজের কাছে তুলে ধরেছেন। কারণ মেঘ অত্যন্ত দ্রুত গতি এবং বিরোহীর কাছে একটি ক্ষণ ও দীর্ঘ। তাই উৎকণ্ঠাবশত মেঘকে দূত হিসাবে নির্বাচন একমাত্র মেধাবী ব্যক্তিরাই করে থাকেন।

Leave a Comment