দশকুমারচরিত

দশকুমারচরিত pdf সহ আচার্য দণ্ডী রচিত সংস্কৃত গদ্য কাব্য দশকুমারচরিতম্ সম্পর্কে টীকা রচনা করা হল ।

দশকুমারচরিতম্ সম্পর্কে টীকা


সূচনা দশকুমারচরিত

সংস্কৃত গদ্য সাহিত্যের আকাশে উজ্জ্বল জ্যোতিষ্ক হলেন দণ্ডী। গদ্য সাহিত্যে ত্রয়ী প্রতিভার অন্যতম হলেন দণ্ডী। গদ্য কাব্যের এই প্রতিভাধর রচয়িতা দশকুমারচরিতম্ রচনা করে বিশ্বসাহিত‍্যের ইতিহাসে চির অমরত্ব লাভ করেছেন।

দশকুমারচরিতের গ্রন্থ বিন‍্যাস

গ্রন্থটি আখ্যায়িকা শ্রেণীর গদ্যকাব্য। এই গ্রন্থটি তিনটি অংশে বিভক্ত। যথা- পূর্বপীঠিকা, উত্তরপীঠিকা ও উপসংহার।

দশকুমারচরিতের উৎস

লোককথার কাহিনীর উপর ভিত্তি করে কবি নিজ প্রতিভাবলে গ্রন্থটিকে অপূর্ব রূপ দান করেছেন। এখানে রাজঅন্তঃপুরের বা পৌরাণিক কাহিনীকে অবলম্বন করে রচিত হয়নি। সমাজের সর্বস্তরের মানুষের সামাজিক চিত্রের মাধ্যমে গ্রন্থটির সম্পূর্ণ রূপ দান করেছেন।

দশকুমারচরিত-এর নামকরণ

দশকুমারের ভ্রমণ বৃত্তান্ত বর্ণিত হয়েছে বলে গ্রন্থটির নামকরণ দশকুমারচরিত যথার্থ ও সার্থক হয়েছে।।

দশকুমারচরিতমের কাহিনী

মগধের রাজা রাজবংশ মালবের রাজার কাছে পরাজিত হয়ে বিন্ধপর্বতে আশ্রয় গ্রহণ করেন। সেখানে রাজপুত্র রাজবাহনের জন্ম হয়। ঘটনাচক্রে মগধ রাজের মন্ত্রীদের নয়টি পুত্র সেখানে আনীত হয়। দশজন কুমার বিদ্যা শিক্ষা লাভ করে দেশ ভ্রমণে বের হয়। ঘটনাচক্রে কুমারেরা একে অপরের কাছ হতে বিচ্ছিন্ন হয়।আবার তারা মিলিত হলে তাদের বৃত্তান্ত বর্ণনা করে। দশ জন কুমারের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন জীবন কাহিনীই হলো দশকুমারচরিতের মূল উপজীব্য বিষয়।

দশকুমারচরিতমের কাব্য বৈশিষ্ট‍্য

এই গ্রন্থে দন্ডির কাব্য শক্তি প্রশংসাযোগ্য। চমৎকার বর্ণনা শৈলীতে যেমন সুন্দর চিত্র ফুটে উঠেছে, তেমনি সমাজের নিন্দনীয় বিষয়গুলি সুন্দরভাবে প্রকট করে তুলেছেন। চরিত্র চিত্রণে, রস সৃষ্টিতে, অলংকার প্রয়োগে কবির নৈপুণ্য দেখে বলা হয় -“দণ্ডিনঃ পদলালিত‍্যম্”।

দশকুমারচরিতমের মূল‍্যায়ণ

দণ্ডীর কবিপ্রতিভার দ্বারা দশকুমারচরিত গ্রন্থটির কাব্যগুণ যথেষ্ট প্রশংসনীয়। তৎকালীন সমাজের চিত্র হলে আমরা কিছু ঐতিহাসিক রসদ পেয়ে থাকি। এই গ্রন্থে যে জীবনবৈচিত্র্য আছে, তাতে বাস্তব জীবনের সংবাদ দেওয়ার তাগিদ আছে, সে সংবাদ সংস্কৃত সাহিত্যে আর কোথাও নেই।

দশকুমারচরিত pdf ডাউনলোড করুন

দশকুমারচরিত pdf ডাউনলোড

Leave a Comment